রাত ৩:২৭ | মঙ্গলবার | ১৫ই অক্টোবর, ২০১৯ ইং | ৩০শে আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

১০০ বছর এগিয়ে গেছে গফরগাঁও যে কারনে বিকল্পহীন উচ্চতায় ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল এমপি

বিল্লাল হোসেন প্রান্ত ॥ জনমত ॥
ইনক্রেডিবল। গফরগাঁও জুড়ে বিষ্ময়কর উন্নয়ন দৃশ্যমান। পরিকল্পিত ও কাঙ্খিত উন্নয়নের দৃশ্যমান চিত্র খোলা চোখেই ধরা পড়ে। স্থানীয় বাসিন্দাদের উপলব্ধি, এলাকার উন্নয়ন দেখলেই প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার কথা মনে পড়ে যায়। গফরগাঁওয়ের প্রতি যার রয়েছে বিশেষ দৃষ্টি। বিরল ভালোবাসা।
আর গফরগাঁও এর সংসদ সদস্য ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল তার নির্বাচনী এলাকায় মাটি ও মানুষের নেতা হয়ে উঠেছেন। সার্বক্ষনিক মিশে আছেন গণ মানুষের সাথে। কাজ করে যাচ্ছেন জনকল্যান ও উন্নয়নে।
বর্তমান সরকার আমলে এমপি ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল এলাকার সার্বিক উন্নয়নের ধারা সূচনা করেছেন।
ফলে দৃশ্যমান বাস্তবতায় চোখে পড়ে বদলে গেছে গফরগাঁও। গত ৩ বছরে শতাধিক প্রকল্পে প্রায় হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন কর্মকান্ড চলছে উপজেলাটিকে। পর্যবেক্ষক মহলÑএই উন্ন্য়ন ধারাকে বৈপ্লবিক ও যুগান্তকারী বলে মন্তব্য করেছেন ।
প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার ৩ বছরের উন্নয়নের যে নজির রেখেছেন, উন্নয়ন বিশ্লেষকদের মতেÑতাতে গফরগাঁও উন্নয়নের মহাসড়কে ১০০ বছর এগিয়ে গেছে।

গফরগাঁওয়ের ১৫ ইউনিয়ন ও পৌর এলাকা এই ব্যাপক উন্নয়ন কর্মকান্ড জনমনে সাড়া ফেলেছে। আওয়ামী লীগ আমলে যে উন্নয়ন হয় তারই উদাহরনের একটি রোল মডেল গফরগাঁও ।
আর, গত দশম সংসদ নির্বাচনে ভোটযুদ্ধে অবর্তীণ হয়ে লক্ষাধিক ভোটের বিশাল ব্যবধানে এমপি নির্বাচিত হন ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল। তরুণ প্রজন্মের এই নেতা গফরগাঁওবাসীর ভোট বিপ্লবের মধ্য দিয়ে জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হন। এর মধ্য দিয়েই গফরগাঁওয়ে সূচিত হয় রাজনীতির নতুন দিগন্ত। নতুন অধ্যায়। নতুন যুগ। গফরগাঁওয়ের এই ইলেক্টোরাল পলিটিক্যাল ডেসটিনেশনÑরাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের কাছে বহুমাত্রিক কারনে গুরুত্বপূর্ণ।
গফরগাঁওয়ের রাজনৈতিক ইতিহাসের প্রবাদ পুরুষ বরাবর নির্বাচিত এমপি আলতাফ হোসেন গোলন্দাজ ছিলেন এক লিজেন্ড । গফরগাঁওয়ের আওয়ামী লীগ দূর্গ তার হাতেই গড়া । তার জীবনাবসানের পর জনপদটির রাজনীতিতে যে কৃষ্ণ মেঘ সঞ্চারণশীল হয়ে উঠে, সেটা হলো স্থানীয় রাজনীতির অন্ধকার যুগ ।
দশম সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা তাই গোলন্দাজের রাজনৈতিক উত্তকসুরি হিসাবে জনপ্রত্যাশীত নেতা ফাহমী গোলন্দাজ বাবেলকে মনোয়ন দেন।
এটা মরহুম জননেতা আলতাফ গোলন্দাজের সুযোগ্য ছেলে ফাহমী গোলন্দাজ বাবেলের জনপ্রতিনিধিত্বের অভিষেক ছিল না; এর মধ্যমে গফরগাঁওয়ের রাজনীতি তারুণ্যের মাত্রা হলো শুরু ।

তরুণ এমপি হয়ে বাবেল গোলন্দাজ স্থানীয় ও আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে এক নতুন যুগের শুরু করেন উন্নয়ন ও জনকল্যাণ সেখানে নিয়ামক।
বাবেল গোলন্দাজ জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্ব এগিয়ে যাওয়া বাংলাদেশে এগিয়ে যাওয়া গফরগাঁওয়ের রূপকার। গফরগাঁওয়ের এই অগ্রযাত্রা তাৎপূর্ণভাবে বৃহত্তর জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট। যে জন্য বাবেল গোলন্দাজের কাজ কর্মে জনমানুষের ক্ষমতায়ন ও অংশীদারিত্ব নিশ্চিত হয়েছে।
বর্তমান সরকার আমলের উন্নয়ন প্রবাহ ও উদ্যোগ সমূহ তাই গফরগাঁও বাসীর কাছে আওয়ামী লীগের জনপ্রিয়তাকে আরো সুসংহত করেছে। আরও নিরংকুশ জনপ্রিয়তায় গফরগাঁও এখন আওয়ামী লীগময়। সেখানে সর্বত্র জননেত্রীর জয়জয়াকার।
বাবেল গোলন্দাজের রাজনৈতিক অগ্রযাত্রার শুভযাত্রা এখানেই সফল যে, তিনি আওয়ামী লীগ ও জনগনকে বর্তমান সরকারের সাফল্যের গুনগ্রাহী করতে পেরেছেন। এবং এটি খুবই তাৎপর্যপূর্ণ।
এর প্রভাব হচ্ছে-নির্বাচনী রাজনীতিতে গফরগাঁও বাবেল গোলন্দাজ এমপির নেতৃত্বে একট্টা।
যা অন্য অনেক এলাকা ও অন্য অনেক নেতার জন্য একটি বিশেষ দৃষ্টি আকর্ষণ। আওয়ামী লীগ গফরগাঁয়ে নিরংকুশ জনপ্রিয়।
তার প্রমাণ গত স্থানীয় সরকার নির্বাচন। গফরগাঁওয়ের ১৫টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনেই আওয়ামী লীগ থেকে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। জেলা পরিষদ নির্বাচনে গফরগাঁও উপজেলা ২৪৪টি ভোটের মধ্যে ২৪৩টি ভোটই আসে আওয়ামী লীগের মনোনীতি প্রার্থীর প্রতীকে। এটি স্থানীয় এমপি ফাহমী গোলন্দাজ বাবেলের নেতৃত্বে তৃণমূলের ঐক্য ও শক্তির নিদর্শন।
গফরগাঁও উপজেলার বাবেল গোলন্দাজ এর নেতৃত্বের প্রতি সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে জনপ্রতিনিধিদের আস্থা, বিশ্বাস ও ভালোবাসা নিবিড়। আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক বলয়ে এবং ভোট ব্যাংকে বাবের গোলন্দাজ এর ডায়নামিক লিডার শীপকে নিয়ে গেছে বিকল্পহীন উচ্চতায়। সংগঠনে সেন্টপার্সেন্ট জনপ্রিয়তা ও গ্রহনযোগ্যতায় যেমন তার কোন প্রতিদ্বন্দ্বী নেই; তেমনি জনগণের কাছেও তার গ্রহনযোগ্যতার প্রশ্নে তিনি অপ্রতিদ্বন্দ্বী।
দলে তার মনোনয়ন প্রতিযোগিতায় যারা আছেন তারা রাজনৈতিক মাঠে কার্যত: নিসঙ্গ। হতাশাকে বুক পকেটে নিয়ে তাদের সমর্থকরা জেনে গেছেন বাবেল গোলন্দাজ শুধু কোন প্রতিদ্বন্দ্বী নয়। তিনি আনপ্যারালাল।

স্থানীয় এক রাজনৈতিক বিশ্লেষক বলেন-বাবেল গোলন্দাজ এর প্রতিদ্বন্দ্বী বাবেল গোলন্দাজই। তার আর কোন অলটারনেটিভ নেই।
কেন এই বিকল্পহীন উচ্চতায় বাবেল গোলন্দাজ, এ ব্যাপারে জানতে স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মীদের সাথে কথা হয় মাটি ও মানুষ এর। তারা জানান-আওয়ামী লীগ প্রবণ নির্বাচনী এলাকাটিকে বাবেল গোলন্দাজ আওয়ামী লীগ অধূষিত এলাকায় পর্যবসিত করেছেন। জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকারের উন্নয়ন ধারা প্রচারে এমপি বাবেল একজন নিবেদিত প্রাণ কর্মী। সর্বস্তরের জনগণের সাথে তিনি উন্নয়ন স্বপ্ন ফেরি করে ফিরছেন। স্বপ্নের গফরগাঁও রূপায়নে তিনি ডিজিটাল বাংলাদেশ আদলকে স্থানীয় গন্ডিতে কাজে লাগাচ্ছেন। স্থানীয় উন্নয়নে অগ্রাধিকারকে তিনি তার রূপকল্প হিসেবে নিয়েছেন। এবং জনগণকে সাথে নিয়ে পথ চলছেন।
আধুনিক গফরগাঁওয়ের রূপকার হিসেবে বাবেল গোলন্দাজ এর নাম এখন এলাকার জনশ্রুতি।
দশম সংসদ নির্বাচনে জয়ী হওয়ার পর দিন থেকেই তিনি একাদশ নির্বাচনে নৌকার বিজয় ধরে রাখার প্রত্যয় নিয়ে কাজ করছেন। তার একদিন প্রতিদিন হচ্ছে-নৌকার দিন, জননেত্রীর দিন, আওয়ামী লীগের দিন, গফরগাঁওয়ের দিন। ফলে এখানে নৌকার ভোট বেড়েছে। আওয়ামী লীগের ভাবমূর্তি খর্ব হয় নি। সমর্থন বেড়েছে। সংগঠন ঐক্যবদ্ধ ও অধিকতর শক্তিশালী হয়েছে। মন্তব্য দলীয় নেতা কর্মী সমর্থকদের।
একাদশ সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে দেশব্যাপী আওয়ামী লীগ জনপ্রিয়, গ্রহনযোগ্য প্রার্থীর সন্ধানে জরিপ চালাচ্ছে। এ ব্যাপারে স্থানীয় জনমতের উপরও সমীক্ষা চলছে।
ভোট বিশেষজ্ঞদের মধ্যে গফরগাঁওয়ে ভোট চিত্রে যে সমীকরণ চলছে সেটা হচ্ছে সুষ্টষ্টভাবে আওয়ামী লীগ ও বাবেল গোলন্দাজের সমর্থনে মেরুকরণ।
জনধারনা এটি নিশ্চিত যে, আওয়ামী লীগের মনোনয়নে বাবেল গোলন্দাজ এমপিই একমাত্র তৃণমূল সমথির্ত প্রার্থী। জনপ্রত্যাশিত প্রার্থীও তিনি। পপুলার ভোটের পূর্বাভাষই তাকে টপ ফেবারিট প্রার্থীর ইমেজে রাখছে।

গফরগাঁও আসনের রাজনীতির প্রবণতা হচ্ছে সরকারের মেয়াদের শেষ দিন এখানে বিরোধীরা ক্র্যাকডাউন করতে তৎপর হয়। নির্বাচনে পরাজয়ের পর এই প্রতিপক্ষরা আতংকে এলাকা থেকে নির্বাসিত হয়।
সে অবস্থায় নির্বাচনের প্রাককালে এখানের সরকার বিরোধীরা মাঠে যখন নামবে তখন এক দশক আগের অবস্থায় তারা ফিরতে পারবে কিনা সেই সংশয় রয়েছে।
কেননা এখানে বিএনপির নেতাদের ক্রান্তিকাল চলছে। রয়েছে অস্তিত্ব সংকট। নতুন নেতৃত্বের উত্থান বা আগমনীটা বিএনপির জন্য খুব যুৎসই নাও হতে পারে।
কেননা- বাবেল গোলন্দাজের রাজনৈতিক অগ্রযাত্রায় গফরগাঁওয়ে এখন আওয়ামী লীগই আজ ও আগামীর জনপ্রিয় দল। এবং যার আর কোন বিকল্প নেই।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ খবর



» আবরার হত্যা – বুয়েট ছাত্র মোয়াজ উত্তরা থেকে গ্রেফতার

» বেস্ট ইলেভেন একাডেমির জার্সি উম্মোচন

» পাবনার সুজানগরে ১০ হাজার মানুষ পানিবন্দি

» মালয়েশিয়ার সেরা তরুণ উদ্যোক্তার তালিকায় স্থান পেয়েছেন বাংলাদেশী মোহাম্মদ ইয়াসিন

» আসছে  ইরফান ও নাদীয়ার নতুন নাটক  “সিনবাদ”

» দিয়াবাড়ির কাঁশফুল যেন শীতের আগমন বার্তা

» আইন শৃঙ্খলা বাহিনী তথ্য উপাত্ত নিয়েই ধরছেন -যুবলীগ চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী

» যুবলীগের সমবায় বিষয়ক সম্পাদক জি কে শামীম গ্রেফতার

» উত্তরা যুবলীগ পদ প্রার্থীদের মধ্যে এগিয়ে যারা

» উত্তরায় তৃতীয় দিনের উচ্ছেদে ভাঙ্গাহলো বহুতল ভবন…

» অবশেষে দখল মুক্ত হলো উত্তরা আব্দুল্লাহপুরের পাউবোর জমি

» উত্তরায় জব্দবৃতক ইয়াবা বন্টনকালে ৫ পুলিশ সদস্য আটক

» উত্তরায় রেস্তোরাঁ মালিক সমিতির নবনির্বাচিত কমিটির অভিষেক অনুষ্ঠিত

» জেনে নিন, ডোমেইন নেম নিয়ে কিছু প্রশ্ন এবং তার উত্তর

» জেনে নিন, ডোমেইন পার্ক নিয়ে কিছু প্রশ্ন এবং উত্তর

আমাদের সঙ্গী হোন

যোগাযোগ

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় –

বাসা#৪৯, রোড#০৮, তুরাগ, ঢাকা।
বার্তা কক্ষ : 01781804141
ইমেইল : timesofbengali@gmail.com

 

© এ.আর খান মিডিয়া ভিশন এর অঙ্গ প্রতিষ্ঠান

      সর্বস্বত্ব স্বাত্বাধিকার টাইমস্ অফ বেঙ্গলী .কম

কারিগরি সহযোগিতায় এ.আর খান হোস্ট

মঙ্গলবার, ৩০শে আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, রাত ৩:২৭ ,

১০০ বছর এগিয়ে গেছে গফরগাঁও যে কারনে বিকল্পহীন উচ্চতায় ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল এমপি

বিল্লাল হোসেন প্রান্ত ॥ জনমত ॥
ইনক্রেডিবল। গফরগাঁও জুড়ে বিষ্ময়কর উন্নয়ন দৃশ্যমান। পরিকল্পিত ও কাঙ্খিত উন্নয়নের দৃশ্যমান চিত্র খোলা চোখেই ধরা পড়ে। স্থানীয় বাসিন্দাদের উপলব্ধি, এলাকার উন্নয়ন দেখলেই প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার কথা মনে পড়ে যায়। গফরগাঁওয়ের প্রতি যার রয়েছে বিশেষ দৃষ্টি। বিরল ভালোবাসা।
আর গফরগাঁও এর সংসদ সদস্য ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল তার নির্বাচনী এলাকায় মাটি ও মানুষের নেতা হয়ে উঠেছেন। সার্বক্ষনিক মিশে আছেন গণ মানুষের সাথে। কাজ করে যাচ্ছেন জনকল্যান ও উন্নয়নে।
বর্তমান সরকার আমলে এমপি ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল এলাকার সার্বিক উন্নয়নের ধারা সূচনা করেছেন।
ফলে দৃশ্যমান বাস্তবতায় চোখে পড়ে বদলে গেছে গফরগাঁও। গত ৩ বছরে শতাধিক প্রকল্পে প্রায় হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন কর্মকান্ড চলছে উপজেলাটিকে। পর্যবেক্ষক মহলÑএই উন্ন্য়ন ধারাকে বৈপ্লবিক ও যুগান্তকারী বলে মন্তব্য করেছেন ।
প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার ৩ বছরের উন্নয়নের যে নজির রেখেছেন, উন্নয়ন বিশ্লেষকদের মতেÑতাতে গফরগাঁও উন্নয়নের মহাসড়কে ১০০ বছর এগিয়ে গেছে।

গফরগাঁওয়ের ১৫ ইউনিয়ন ও পৌর এলাকা এই ব্যাপক উন্নয়ন কর্মকান্ড জনমনে সাড়া ফেলেছে। আওয়ামী লীগ আমলে যে উন্নয়ন হয় তারই উদাহরনের একটি রোল মডেল গফরগাঁও ।
আর, গত দশম সংসদ নির্বাচনে ভোটযুদ্ধে অবর্তীণ হয়ে লক্ষাধিক ভোটের বিশাল ব্যবধানে এমপি নির্বাচিত হন ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল। তরুণ প্রজন্মের এই নেতা গফরগাঁওবাসীর ভোট বিপ্লবের মধ্য দিয়ে জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হন। এর মধ্য দিয়েই গফরগাঁওয়ে সূচিত হয় রাজনীতির নতুন দিগন্ত। নতুন অধ্যায়। নতুন যুগ। গফরগাঁওয়ের এই ইলেক্টোরাল পলিটিক্যাল ডেসটিনেশনÑরাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের কাছে বহুমাত্রিক কারনে গুরুত্বপূর্ণ।
গফরগাঁওয়ের রাজনৈতিক ইতিহাসের প্রবাদ পুরুষ বরাবর নির্বাচিত এমপি আলতাফ হোসেন গোলন্দাজ ছিলেন এক লিজেন্ড । গফরগাঁওয়ের আওয়ামী লীগ দূর্গ তার হাতেই গড়া । তার জীবনাবসানের পর জনপদটির রাজনীতিতে যে কৃষ্ণ মেঘ সঞ্চারণশীল হয়ে উঠে, সেটা হলো স্থানীয় রাজনীতির অন্ধকার যুগ ।
দশম সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা তাই গোলন্দাজের রাজনৈতিক উত্তকসুরি হিসাবে জনপ্রত্যাশীত নেতা ফাহমী গোলন্দাজ বাবেলকে মনোয়ন দেন।
এটা মরহুম জননেতা আলতাফ গোলন্দাজের সুযোগ্য ছেলে ফাহমী গোলন্দাজ বাবেলের জনপ্রতিনিধিত্বের অভিষেক ছিল না; এর মধ্যমে গফরগাঁওয়ের রাজনীতি তারুণ্যের মাত্রা হলো শুরু ।

তরুণ এমপি হয়ে বাবেল গোলন্দাজ স্থানীয় ও আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে এক নতুন যুগের শুরু করেন উন্নয়ন ও জনকল্যাণ সেখানে নিয়ামক।
বাবেল গোলন্দাজ জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্ব এগিয়ে যাওয়া বাংলাদেশে এগিয়ে যাওয়া গফরগাঁওয়ের রূপকার। গফরগাঁওয়ের এই অগ্রযাত্রা তাৎপূর্ণভাবে বৃহত্তর জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট। যে জন্য বাবেল গোলন্দাজের কাজ কর্মে জনমানুষের ক্ষমতায়ন ও অংশীদারিত্ব নিশ্চিত হয়েছে।
বর্তমান সরকার আমলের উন্নয়ন প্রবাহ ও উদ্যোগ সমূহ তাই গফরগাঁও বাসীর কাছে আওয়ামী লীগের জনপ্রিয়তাকে আরো সুসংহত করেছে। আরও নিরংকুশ জনপ্রিয়তায় গফরগাঁও এখন আওয়ামী লীগময়। সেখানে সর্বত্র জননেত্রীর জয়জয়াকার।
বাবেল গোলন্দাজের রাজনৈতিক অগ্রযাত্রার শুভযাত্রা এখানেই সফল যে, তিনি আওয়ামী লীগ ও জনগনকে বর্তমান সরকারের সাফল্যের গুনগ্রাহী করতে পেরেছেন। এবং এটি খুবই তাৎপর্যপূর্ণ।
এর প্রভাব হচ্ছে-নির্বাচনী রাজনীতিতে গফরগাঁও বাবেল গোলন্দাজ এমপির নেতৃত্বে একট্টা।
যা অন্য অনেক এলাকা ও অন্য অনেক নেতার জন্য একটি বিশেষ দৃষ্টি আকর্ষণ। আওয়ামী লীগ গফরগাঁয়ে নিরংকুশ জনপ্রিয়।
তার প্রমাণ গত স্থানীয় সরকার নির্বাচন। গফরগাঁওয়ের ১৫টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনেই আওয়ামী লীগ থেকে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। জেলা পরিষদ নির্বাচনে গফরগাঁও উপজেলা ২৪৪টি ভোটের মধ্যে ২৪৩টি ভোটই আসে আওয়ামী লীগের মনোনীতি প্রার্থীর প্রতীকে। এটি স্থানীয় এমপি ফাহমী গোলন্দাজ বাবেলের নেতৃত্বে তৃণমূলের ঐক্য ও শক্তির নিদর্শন।
গফরগাঁও উপজেলার বাবেল গোলন্দাজ এর নেতৃত্বের প্রতি সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে জনপ্রতিনিধিদের আস্থা, বিশ্বাস ও ভালোবাসা নিবিড়। আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক বলয়ে এবং ভোট ব্যাংকে বাবের গোলন্দাজ এর ডায়নামিক লিডার শীপকে নিয়ে গেছে বিকল্পহীন উচ্চতায়। সংগঠনে সেন্টপার্সেন্ট জনপ্রিয়তা ও গ্রহনযোগ্যতায় যেমন তার কোন প্রতিদ্বন্দ্বী নেই; তেমনি জনগণের কাছেও তার গ্রহনযোগ্যতার প্রশ্নে তিনি অপ্রতিদ্বন্দ্বী।
দলে তার মনোনয়ন প্রতিযোগিতায় যারা আছেন তারা রাজনৈতিক মাঠে কার্যত: নিসঙ্গ। হতাশাকে বুক পকেটে নিয়ে তাদের সমর্থকরা জেনে গেছেন বাবেল গোলন্দাজ শুধু কোন প্রতিদ্বন্দ্বী নয়। তিনি আনপ্যারালাল।

স্থানীয় এক রাজনৈতিক বিশ্লেষক বলেন-বাবেল গোলন্দাজ এর প্রতিদ্বন্দ্বী বাবেল গোলন্দাজই। তার আর কোন অলটারনেটিভ নেই।
কেন এই বিকল্পহীন উচ্চতায় বাবেল গোলন্দাজ, এ ব্যাপারে জানতে স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মীদের সাথে কথা হয় মাটি ও মানুষ এর। তারা জানান-আওয়ামী লীগ প্রবণ নির্বাচনী এলাকাটিকে বাবেল গোলন্দাজ আওয়ামী লীগ অধূষিত এলাকায় পর্যবসিত করেছেন। জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকারের উন্নয়ন ধারা প্রচারে এমপি বাবেল একজন নিবেদিত প্রাণ কর্মী। সর্বস্তরের জনগণের সাথে তিনি উন্নয়ন স্বপ্ন ফেরি করে ফিরছেন। স্বপ্নের গফরগাঁও রূপায়নে তিনি ডিজিটাল বাংলাদেশ আদলকে স্থানীয় গন্ডিতে কাজে লাগাচ্ছেন। স্থানীয় উন্নয়নে অগ্রাধিকারকে তিনি তার রূপকল্প হিসেবে নিয়েছেন। এবং জনগণকে সাথে নিয়ে পথ চলছেন।
আধুনিক গফরগাঁওয়ের রূপকার হিসেবে বাবেল গোলন্দাজ এর নাম এখন এলাকার জনশ্রুতি।
দশম সংসদ নির্বাচনে জয়ী হওয়ার পর দিন থেকেই তিনি একাদশ নির্বাচনে নৌকার বিজয় ধরে রাখার প্রত্যয় নিয়ে কাজ করছেন। তার একদিন প্রতিদিন হচ্ছে-নৌকার দিন, জননেত্রীর দিন, আওয়ামী লীগের দিন, গফরগাঁওয়ের দিন। ফলে এখানে নৌকার ভোট বেড়েছে। আওয়ামী লীগের ভাবমূর্তি খর্ব হয় নি। সমর্থন বেড়েছে। সংগঠন ঐক্যবদ্ধ ও অধিকতর শক্তিশালী হয়েছে। মন্তব্য দলীয় নেতা কর্মী সমর্থকদের।
একাদশ সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে দেশব্যাপী আওয়ামী লীগ জনপ্রিয়, গ্রহনযোগ্য প্রার্থীর সন্ধানে জরিপ চালাচ্ছে। এ ব্যাপারে স্থানীয় জনমতের উপরও সমীক্ষা চলছে।
ভোট বিশেষজ্ঞদের মধ্যে গফরগাঁওয়ে ভোট চিত্রে যে সমীকরণ চলছে সেটা হচ্ছে সুষ্টষ্টভাবে আওয়ামী লীগ ও বাবেল গোলন্দাজের সমর্থনে মেরুকরণ।
জনধারনা এটি নিশ্চিত যে, আওয়ামী লীগের মনোনয়নে বাবেল গোলন্দাজ এমপিই একমাত্র তৃণমূল সমথির্ত প্রার্থী। জনপ্রত্যাশিত প্রার্থীও তিনি। পপুলার ভোটের পূর্বাভাষই তাকে টপ ফেবারিট প্রার্থীর ইমেজে রাখছে।

গফরগাঁও আসনের রাজনীতির প্রবণতা হচ্ছে সরকারের মেয়াদের শেষ দিন এখানে বিরোধীরা ক্র্যাকডাউন করতে তৎপর হয়। নির্বাচনে পরাজয়ের পর এই প্রতিপক্ষরা আতংকে এলাকা থেকে নির্বাসিত হয়।
সে অবস্থায় নির্বাচনের প্রাককালে এখানের সরকার বিরোধীরা মাঠে যখন নামবে তখন এক দশক আগের অবস্থায় তারা ফিরতে পারবে কিনা সেই সংশয় রয়েছে।
কেননা এখানে বিএনপির নেতাদের ক্রান্তিকাল চলছে। রয়েছে অস্তিত্ব সংকট। নতুন নেতৃত্বের উত্থান বা আগমনীটা বিএনপির জন্য খুব যুৎসই নাও হতে পারে।
কেননা- বাবেল গোলন্দাজের রাজনৈতিক অগ্রযাত্রায় গফরগাঁওয়ে এখন আওয়ামী লীগই আজ ও আগামীর জনপ্রিয় দল। এবং যার আর কোন বিকল্প নেই।

সর্বশেষ খবর



এ বিভাগের অন্যান্য খবর



আমাদের সঙ্গী হোন

যোগাযোগ

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় –

বাসা#৪৯, রোড#০৮, তুরাগ, ঢাকা।
বার্তা কক্ষ : 01781804141
ইমেইল : timesofbengali@gmail.com

 

© এ.আর খান মিডিয়া ভিশন এর অঙ্গ প্রতিষ্ঠান

      সর্বস্বত্ব স্বাত্বাধিকার টাইমস্ অফ বেঙ্গলী .কম

কারিগরি সহযোগিতায় এ.আর খান হোস্ট