প্রকাশিত : Mon, Aug 28th, 2017

নবজাতকের ত্বকের সমস্যায় করনীয়, জেনে নিন

ডায়াপার র‌্যাশ
সঠিকভাবে ডায়াপার না পরালে অনেক শিশুরই এ সমস্যা হয়। এটির কারণে ডায়াপারসংলগ্ন অংশ যেমন ঊরুসন্ধি ও পশ্চাদ্দেশ অনেক সময় লাল হয়ে যায়, চুলকায় বা দানা দানা হয়ে যায়। ডায়াপার ঘন ঘন না পাল্টালে ও খুব শক্ত করে আটকালে এমন হয়। র‌্যাশ দেখা দিলে যতটা সময় সম্ভব ডায়াপার ছাড়া রাখতে হবে। দ্রুত পাল্টাতে হবে ভেজা ডায়াপার। খুব লাল হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

নবজাতকের র‌্যাশ
নবজাতকের জন্মের দুই-তিন দিন পরে বা এক সপ্তাহের মধ্যে সারা শরীরে লাল লাল র‌্যাশ ও দানা দেখা যায়। এগুলোকে অনেকেই ‘মাসি-পিসি’ বলেন। মুখ, হাত, পা এমনকি সারা দেহেই হতে পারে এগুলো। এগুলোর জন্য উদ্বিগ্ন হওয়ার কারণ নেই। কারণ সাধারণত ১০ দিনের মধ্যে এগুলো নিজে নিজেই সেরে যায়।

জন্মদাগ
নবজাতকের শরীরে ১০টি পর্যন্ত জন্মদাগ থাকা অস্বাভাবিক কিছু নয়। এগুলো কালো বা অন্য কোনো রঙের হতে পারে। সাধারণত মাতৃগর্ভে থাকার সময় বিভিন্ন চাপ সৃষ্টি হওয়ার কারণে এই দাগ পড়ে। এগুলো জন্মের পর পর বা কয়েক মাস পরও দেখা যেতে পারে। অনেক জন্মদাগ সময়ের সঙ্গে ফিকে হয়ে আসে। এ নিয়ে দুশ্চিন্তার কিছু নেই। তবে নিশ্চিত হওয়া প্রয়োজন, সেগুলো আসলেই জন্মদাগ কি না।

ত্বকের ওপরে স্তর
শিশুর ত্বকের ওপরের পাতলা অংশ অনেক সময় উঠে যায়। অনেকটা হালকা পেঁয়াজের খোসার মতো উঠে আসে বলে একে ‘পিলিং’ বলা হয়। সাধারণত শুষ্ক ত্বকের জন্য এমনটা হয়। নবজাতককে গোসল করানোর পর তেল বা লোশন লাগিয়ে দিলে এই শুষ্কতা অধিকাংশ ক্ষেত্রে ঠিক হয়ে যায়।

পিম্পল বা ব্রণ
নবজাতকের মুখেও পিম্পল বা ব্রণের মতো দেখা যায়। তবে এটি বড়দের ব্রণের মতো নয়। সাধারণত মায়ের রক্তে হরমোনের প্রভাবে এই ব্রণ হয়। এ সমস্যা সাধারণত নিজে নিজেই ঠিক হয়ে যায়।
সূত্র : হেলথ লাইন

549 total views, 3 views today

Related Posts

Share

Comments

comments

রিপোর্টার সম্পর্কে

%d bloggers like this: