প্রকাশিত : Thu, Nov 16th, 2017

রুপগঞ্জে পূর্বাচল প্রি-ক্যাডেট স্কুলে পিএসসি পরীক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত

পূর্বাচল-প্রি-ক্যাডেট-স্কুলে

মোল্লা তানিয়া ইসলাম(তমা):  নারায়ণগঞ্জ জেলার রুপগঞ্জ থানার গোয়ালপাড়া এলাকায়  পূর্বাচল প্রি-ক্যাডেট স্কুলে ৫ম শ্রেনীর সমাপনী (পি.এস.সি) পরীক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠান উপলক্ষ্যে ১৬ নভেম্বর বৃহস্প্রতিবার সকাল সাড়ে ৯টায় স্কুল মিলনায়তনে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল এবং শিক্ষা উপকরন বিতরণ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে । বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক, হাজী আব্দুল সাদেক সরকারের সভাপতিত্বে ও প্রতিষ্টাতা চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল মামুনের সার্বিক পরিচালনায় উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন  মনিরুজ্জামান বাদশা মেম্বার, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থীত ছিলেন বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মোন্তাজউদ্দিন (সাবেক মেম্বার), অন্যান্যের মধ্যে আরো ইপস্থীত ছিলেন আলহাজ্ব সুরুজ্জামান মেম্বার , মিয়াজ উদ্দিন (সাবেক মেম্বার), আলহাজ্ব  ডা: নুরুজ্জামান, হারুন অর রশিদ (সদস্য প্রগতি উচ্চ বিদ্যালয়), হাজী ওবাইদুল রহমান বকুল (সভাপতি গোয়ালপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়), আলহাজ্ব আমানউল্লাহ,যুবলীগ নেতা হাজী আব্দুল মতিন ভূইয়া, হাজী আকবর আলী নায়েব, হাজী এনতাজ উদ্দিন, মজিবুর রহমান (সাবেক সভাপতি গোয়ালপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়), মুফতি মাওলানা হাবিবুর রহমান, মোঃ আবুল কালাম (প্রধান শিক্ষক কর্ডোভা প্রি-ক্যাডেট স্কুল), মো: হোসেন মিয়া প্রমুখ। অত্র স্কুলের প্রতিষ্টাতা চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল মামুন শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের উদ্যেশে তার বক্তব্যে বলে, যে কোনে ক্ষেত্রে পরীক্ষা হচ্ছে মূল্যায়নের একমাত্র পদ্ধতি। শিক্ষাক্ষেত্রে পি এস সি  পরীক্ষা প্রত্যেক শিক্ষার্থীর জীবনের প্রথম মাইলফলক। বিজ্ঞানি ফ্রাঙ্কলিন বলেছেন শিক্ষা ব্যতীত একজন প্রতিভাবান, খনিতে থাকার রূপার মতন। দীর্ঘ ৫ বৎসরের শি্ক্ষা জীবনের মূল্যায়ন হয় পি এস সি পরীক্ষার মধ্য দিয়ে। তাই এই পরীক্ষা প্রত্যেক শিক্ষার্থীর জীবনের প্রথম ধাপ এর মধ্য দিয়ে যাত্রা শুরু হয় উচ্চশিক্ষার।  জীবনের লক্ষ স্থির করার পথ এই পি এস সি পরীক্ষা । সবকিছুর মত এই পরীক্ষা পদ্ধতিতে গঠনমূলক অনেক পরিবর্তন এনে একে উন্নত করা হয়েছে। আগের পরীক্ষা পদ্ধতি এখনকার পরীক্ষা পদ্ধতির মাঝে রয়েছে অনেক ফারাক। তাই এখনকার শিক্ষার্থীরা অনেক সৌভাগবান যে তারা সৃজনশীল পদ্ধতিতে পরীক্ষা দিচ্ছে। এতে শিক্ষা গ্রহণে পুরনো রীতিতে কষ্ট করতে হচ্ছে না বরং অল্প সময়ে বেশী শিখা সম্ভব। অধিক মনোযোগী হয়ে পড়লে নিজের চিমত্মা শক্তির বিকাশ ঘটিয়ে ভাল ফলা ফল করা খুব সহজ। এখন আগের তুলনায় পাসের হার বেশী আবার গৌরবান্ধিত জি পি ৫ পাওয়ার সংখ্যা ও বেশী। এটা অবশ্যই শিক্ষাক্ষেত্রে ইতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। আগের মত মুখসত্ম বিদ্যার ছড়াছড়ি নেই এখন। মেধা ও মনের বিকাশ সাধন করে, নিজের প্রতিভার পরিচয় প্রকাশিত হওয়ার সময়। এখন নিজেদের বাকি বই মনোযোগ দিয়ে শুরু  থেকে শেষ পর্যন্ত পড়ে এলেই হয়, পরীক্ষার হলে চিমত্মাভাবনা করে উত্তর বের কথা যায়। আবার পরীক্ষার ফল বের হওয়ার সময় নম্বর নিয়ে চুলচেরা টানাটানি নেই, সবাই এখন একটা গ্রেড পায়। যদিও জীবনের প্রথম সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষা এইবার যারা দেবে স্বভাবতই কিছুটা ভয় জড়তা থাকার কথা। অভিভাবকরা চিন্তা করতে পারেন। কিন্তু এটা ভুল। তিনি অভিভাবকদের উদ্যেশ্যে বলেন আপনারদে সন্তানদের নিয়ে আপনারা কোন চিন্তা করবেন না। বর্তমানে পূর্বাচল প্রি-ক্যাডেট স্কুলের প্রত্যেক শিক্ষক/ কিক্ষিকা আধুনিক শিক্ষা বিস্তাবে তারা অনেক মেধাবী। আপনারা সন্তানদের প্রতি একটু খেয়াল রাখলেই আগামীতে আপনার সন্তারা সুশিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে দেশ ও জাতীকে এগিয়ে নিতে সক্ষম হবে ইনসাল্লাহ।

10,850 total views, 3 views today

Related Posts

Share

Comments

comments

রিপোর্টার সম্পর্কে

%d bloggers like this: