বিকাল ৩:৪৬ | সোমবার | ২২শে জুলাই, ২০১৯ ইং | ৭ই শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

উত্তরা ট্রাফিক বিভাগের উদ্যোগে শিশুদের  হেলমেট বিতরণ

মোঃ আবু বক্কর সিদ্দিক সুমনঃ  রাজধানীর উত্তরা ১১ নাম্বার চৌরাস্তা এলাকায়  মোটরসাইকেলে আরোহী শিশুদের মধ্যে হেলমেট বিতরণ করেন উত্তরা ট্রাফিক বিভাগ।
সোমবার সকালে সাড়ে ১১ টার দিকে উত্তরার ১১ নং সেক্টর সংলগ্ন জমজম টাওয়ার মার্কেটের সামনে শিশুদের হেলমেট, ফুল ও চকলেট বিতরণ করা হয়।
ট্রাফিক বিভাগের সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার জুলফিকার আলী এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
তিনি বলেন, ‘উত্তরা ট্রাফিক জোনের পক্ষ থেকে একটি ক্ষুদ্র প্রচেষ্টা এটি। আমরা যারা রাস্তায় কাজ করি বাস্তবতাটা হচ্ছে আইনের সুষ্ঠু প্রয়োগ করতে গিয়ে দেখছি শিশুদের বিষয়টা উপেক্ষিতই রয়ে যাচ্ছে। যারা বাইক ব্যবহার করেন তারা অনেকেই শিশুদের জন্য হেটমেট ব্যবহার করেন না।’
জুলফিকার আলী বলেন, ‘অভিভাবকদের সচেতন করতে আমরা এটি একটি মেসেজ দিচ্ছি। একভাবে আমরা তাদের সেফটি ও দিচ্ছি। টোটাল ১৩টি পয়েন্টে চেক পোস্ট করা হচ্ছে। মোটরযান আইন প্রয়োগের ক্ষেত্রে বিন্দুমাত্র ছাড় দেয়া হবে না।’
পরে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের কাছে দুঃখ প্রকাশ করে বাইকারদের ব্যাপারে নিজের অভিজ্ঞতা প্রকাশ করেন তিনি।
বাইকারদের কাগজপত্র দেখতে চাইলে তারা বলে, মামলা দিবেন, এই দেখেন মামলা খাইছি। লজ্জা দেয়ার জন্য মামলা দেয়া হয়। কেনো সচেতন হবে না।
আবার হেলমেটবিহীন বাইকারদের ধরলেই বলে, এই যে এখানেই যাবো। হেলমেটের কি দরকার?
জুলফিকার আলী বলেন, ‘২শ টাকার মামলা অনেকেই পাত্তা দেয় না। তো সচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে প্রথমে। যে দুই লাখ টাকা দিয়ে বাইক কিনতে পারে তারা হেলমেট কিনতে পারবে না? এটা কেমন কথা।
ট্রাফিক বিভাগের এই সিনিয়র কর্মকর্তা বলেন, ‘দুর্ঘটনা দেখেছি। তাই এর বাস্তবতাটা আমরা বুঝি। অফিসারদের নিকট থেকে টাকা নিয়ে বাঁচ্চাদের জন্য হেলমেট কিনেছি, ফুল কিনেছি, চকলেট কিনেছি। আমাদের এই ছোট প্রচেষ্টা অভিভাবকদের যদি একটু সচেতনতা বৃদ্ধিতে কাজে আসে তাহলে খুশি হবো।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ খবর



» তুরাগে পড়ে যাওয়া ট্যাক্সিক্যাবের সন্ধান মেলেনি, উদ্ধার কাজ চলছে

» উত্তরায় কিশোর গ্যাং গ্রুপের ১৪ সদস্য আটক

» বাংলাদেশে অফিস চালু করছে ফেসবুক

» উচ্চমাধ্যমিকের ফল প্রকাশ: পাসের হার ৭৩.৯৩%

» বিয়ের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে নববধূকে তালাক যৌতুকে মোটরসাইকেল না পেয়ে

» ট্রাফিক সার্জেন্ট কিবরিয়াকে বাঁচানো গেল না

» রাজধানীতে বাড়ছে কিশোর গ্যাং কালচার

» পৃথিবীর সবচেয়ে বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী এসি ও ফ্রিজ আবিষ্কার করলেন টাঙ্গাইলের শরীফুল

» ফাইনাল রাউন্ডে ওঠার জন্য যৌন সম্পর্ক!

» উত্তরায় যায়যায়দিন-এর ১৪তম বর্ষ পূর্তি উদযাপন

» তুরাগ হতে কিশোর গ্যাং গ্রুপের ১১ সদস্যকে অস্ত্রসহ গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১

» তুরাগের ১৭শ পিছ ইয়াবাসহ আটক ৪

» বরুড়ার পৌর কাউন্সিলরের বাড়িতে হামলা ভাংচুর

» দশমিনা উপজেলায় সর্বপ্রথম মানবতার দেয়াল এর শুভ উদ্ভোধন

» কাজী ফজলুল হকের ৭০তম জন্মদিন পালন

আমাদের সঙ্গী হোন

যোগাযোগ

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় –

বাসা#৪৯, রোড#০৮, তুরাগ, ঢাকা।
বার্তা কক্ষ : 01781804141
ইমেইল : timesofbengali@gmail.com

 

© এ.আর খান মিডিয়া ভিশন এর অঙ্গ প্রতিষ্ঠান

      সর্বস্বত্ব স্বাত্বাধিকার টাইমস্ অফ বেঙ্গলী .কম

কারিগরি সহযোগিতায় এ.আর খান হোস্ট

সোমবার, ৭ই শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, বিকাল ৩:৪৬ ,

উত্তরা ট্রাফিক বিভাগের উদ্যোগে শিশুদের  হেলমেট বিতরণ

মোঃ আবু বক্কর সিদ্দিক সুমনঃ  রাজধানীর উত্তরা ১১ নাম্বার চৌরাস্তা এলাকায়  মোটরসাইকেলে আরোহী শিশুদের মধ্যে হেলমেট বিতরণ করেন উত্তরা ট্রাফিক বিভাগ।
সোমবার সকালে সাড়ে ১১ টার দিকে উত্তরার ১১ নং সেক্টর সংলগ্ন জমজম টাওয়ার মার্কেটের সামনে শিশুদের হেলমেট, ফুল ও চকলেট বিতরণ করা হয়।
ট্রাফিক বিভাগের সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার জুলফিকার আলী এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
তিনি বলেন, ‘উত্তরা ট্রাফিক জোনের পক্ষ থেকে একটি ক্ষুদ্র প্রচেষ্টা এটি। আমরা যারা রাস্তায় কাজ করি বাস্তবতাটা হচ্ছে আইনের সুষ্ঠু প্রয়োগ করতে গিয়ে দেখছি শিশুদের বিষয়টা উপেক্ষিতই রয়ে যাচ্ছে। যারা বাইক ব্যবহার করেন তারা অনেকেই শিশুদের জন্য হেটমেট ব্যবহার করেন না।’
জুলফিকার আলী বলেন, ‘অভিভাবকদের সচেতন করতে আমরা এটি একটি মেসেজ দিচ্ছি। একভাবে আমরা তাদের সেফটি ও দিচ্ছি। টোটাল ১৩টি পয়েন্টে চেক পোস্ট করা হচ্ছে। মোটরযান আইন প্রয়োগের ক্ষেত্রে বিন্দুমাত্র ছাড় দেয়া হবে না।’
পরে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের কাছে দুঃখ প্রকাশ করে বাইকারদের ব্যাপারে নিজের অভিজ্ঞতা প্রকাশ করেন তিনি।
বাইকারদের কাগজপত্র দেখতে চাইলে তারা বলে, মামলা দিবেন, এই দেখেন মামলা খাইছি। লজ্জা দেয়ার জন্য মামলা দেয়া হয়। কেনো সচেতন হবে না।
আবার হেলমেটবিহীন বাইকারদের ধরলেই বলে, এই যে এখানেই যাবো। হেলমেটের কি দরকার?
জুলফিকার আলী বলেন, ‘২শ টাকার মামলা অনেকেই পাত্তা দেয় না। তো সচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে প্রথমে। যে দুই লাখ টাকা দিয়ে বাইক কিনতে পারে তারা হেলমেট কিনতে পারবে না? এটা কেমন কথা।
ট্রাফিক বিভাগের এই সিনিয়র কর্মকর্তা বলেন, ‘দুর্ঘটনা দেখেছি। তাই এর বাস্তবতাটা আমরা বুঝি। অফিসারদের নিকট থেকে টাকা নিয়ে বাঁচ্চাদের জন্য হেলমেট কিনেছি, ফুল কিনেছি, চকলেট কিনেছি। আমাদের এই ছোট প্রচেষ্টা অভিভাবকদের যদি একটু সচেতনতা বৃদ্ধিতে কাজে আসে তাহলে খুশি হবো।

সর্বশেষ খবর



এ বিভাগের অন্যান্য খবর



আমাদের সঙ্গী হোন

যোগাযোগ

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় –

বাসা#৪৯, রোড#০৮, তুরাগ, ঢাকা।
বার্তা কক্ষ : 01781804141
ইমেইল : timesofbengali@gmail.com

 

© এ.আর খান মিডিয়া ভিশন এর অঙ্গ প্রতিষ্ঠান

      সর্বস্বত্ব স্বাত্বাধিকার টাইমস্ অফ বেঙ্গলী .কম

কারিগরি সহযোগিতায় এ.আর খান হোস্ট